top of page

কমিউনিটি ক্লিনিকের মানোন্নয়নে কাজ করছে বাগেরহাট ডিপিএফ

Updated: Dec 12, 2022


“প্রতি মাসে তিন সপ্তাহের আগেই প্যারাসিটামল, আয়রন ট্যাবলেট, অ্যান্টাসিড – এসব ওষুধ শেষ হয়ে যায়।ফলে রোগীদেরকে খালি হাতে ফিরতে হয়।”

মুক্ষাইট কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্যকর্মী মিজানুর রহমানের সাথে কথা বলছিলেন গোটাপাড়ার বাসিন্দা কবিতা রানী।তিনি কাশির ওষুধ নিতে এসেছেন।মাস্ক না থাকায় শাড়ির আঁচল মুখে চেপে লজ্জিত স্বরে তিনি বললেন, “পরেরবার (মাস্ক আনতে) আর ভুল হবে না।”

দীর্ঘদিন ধরেই কাশির সমস্যায় ভুগছেন তিনি।আর গত কয়েকদিন ধরে তার পা জোড়াও বেশ চুলকাচ্ছে। “নিন, এই ওষুধগুলো আজকে আর কালকে খাবেন।ডোজ আগেরটাই,” ওষুধ বুঝিয়ে দিলেন মিজান।


“আর এই পায়ের চুলকানি নিয়ে কী করবো?” কবিতা রানীর প্রশ্ন। “আগামী মাসের শুরুর দিকে আসবেন; আমার কাছে এই মুহূর্তে মলম নেই।আর আপনি শহরে গিয়ে একজন চর্মরোগের ডাক্তার দেখাতে পারলে সবচেয়ে ভালো হয়।” কবিতা রানীর পর এলেন ষাটোর্ধ্ব রোগী আব্দুল জাব্বার।হাঁপানিতে ভুগছেন।তিনিও বেশ কিছুদিনের ওষুধ নিয়ে চলে গেলেন।আরো কয়েকজন রোগী লাইন ধরে অপেক্ষা করছিলেন স্বাস্থ্যকর্মী মিজানের সাথে দেখা করার জন্য।রোগীরা তাকে সম্মান করে ‘ডাক্তার সাহেব’ বলেই ডাকেন।


ইউরোপিয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ও বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সহায়তায় প্ল্যাটফর্মস ফর ডায়ালগ (পিফরডি) প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ প্রকল্পের অংশ হিসেবেই বাগেরহাটসহ দেশের মোট ১২টি জেলায় গঠিত হয়েছে ডিস্ট্রিক্ট পলিসি ফোরাম (ডিপিএফ)। বাগেরহাট জেলার কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোর ব্যবস্থাপনা কমিটি সচল করার লক্ষ্যে নিরলস চেষ্টা করে গেছে এই ফোরাম। তাদের প্রচেষ্টার ফলেই জেলার মুক্ষাইট ইউনিয়নের এই ছোট্ট স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে সেবার মানের অভূতপূর্ব উন্নতি ঘটেছে। এখন ক্লিনিক ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের কেউ না কেউ প্রতিদিন অন্তত একবার দেখে যান সবকিছু ঠিকঠাক আছে কিনা। এই ফোরাম গঠনে ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর গোপীনাথ সাহা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি বলেন, “সামাজিকভাবে গ্রহণযোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তা আছে এমন ব্যাক্তিদেরই আমি ফোরামের সদস্য হওয়ার জন্য নির্বাচিত করেছি।.কারণ সমাজে তাদের কাজের প্রভাব রয়েছে। এছাড়াও, সদস্য হওয়ার জন্য যেসব যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন তাও তাদের আছে। অনেককে তাদের ম্যাপ মেম্বার হিসেবে কাজ করার পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকার কারণে নির্বাচিত করা হয়েছে। এছাড়া সাংবাদিক এবং সিএসও সদস্যদেরও আমরা সদস্য নির্বাচিত করেছি।“


নিয়মিত পরিদর্শনের অংশ হিসেবেই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এসেছিলেন ব্যবস্থাপনা কমিটির সহসভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল গাফফার। তিনি লক্ষ্য করলেন যে নবজাতকের ওজন মাপের জন্য প্লাস্টিকের বড় বলটির ভেতর কোনো কুশন বা ম্যাট্রেস নেই।তিনি স্বীকার করলেন, বিষয়টি অস্বস্তিকর। “কমিটির আগামী মিটিংয়েই বিষয়টি নিয়ে কথা বলে আমি ফান্ড কালেকশনের ব্যবস্থা করব,” চলে যাওয়ার আগে স্বাস্থ্যকর্মী মিজানকে বলছিলেন তিনি।পুরো স্বাস্থ্যকেন্দ্রেই নিয়মিত তদারকির ছাপ সুস্পষ্ট।পরিচ্ছন্ন শৌচাগারে সাবান ও পর্যাপ্তপানির ব্যবস্থা রয়েছে, যা ক্লিনিকে আসা রোগীদের জন্য দারুণ স্বস্তিদায়ক।


সারাদেশে হাতেগোনা যে কয়টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে, মুক্ষাইটের ক্লিনিকটি সেগুলোর অন্যতম। আর এটিও সম্ভব হয়েছে ডিস্ট্রিক্ট পলিসি ফোরামের প্রচেষ্টার ফলেই। তবে এখনো এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নানারকম সমস্যা আছে। মিজানুর রহমান জানালেন, প্রতি মাসে ওষুধ হাতে আসার মাত্র তিন সপ্তাহের মাথায়ই অনেক ওষুধ ফুরিয়ে যায়। “প্রতি মাসে তিন সপ্তাহের আগেই প্যারাসিটামল, আয়রন ট্যাবলেট, অ্যান্টাসিড – এসব ওষুধ শেষ হয়ে যায়।ফলে রোগীদেরকে খালি হাতে ফিরতে হয়।”


সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডা: প্রদীপ কুমার বকশী বলেন, “আমরা ইতোমধ্যেই বাগেরহাটের দশটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে প্রসব কক্ষের ব্যবস্থা করেছি।প্রতিটি ক্লিনিকের জন্য প্রশিক্ষিত ধাত্রী নিশ্চিত করার বিষয়টিও আমাদের পরিকল্পনায় রয়েছে।তিনি জানান, ডিপিএফ সদস্যদের প্রচারণার ফলে এক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তা ও স্থানীয়বাসিন্দাদের প্রচেষ্টা আরো বেগবান হয়েছে।


“ব্যাপারটা ছিল অনেকটা ঝাঁকুনি খেয়ে ঘুম থেকে জেগে ওঠার মতো। সত্যি বলতে কি, আমরা আগের চেয়ে অনেক সক্রিয় হয়েছি। কারণ আমরা এখন জানি, ঠিকমতো কাজ না করলে পলিসি ফোরামের সদস্যরা আমাদেরকে জবাবদিহির মুখোমুখি করবেন,” বলছিলেন পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উপপরিচালক বিকাশ কুমার দাস। তার মতে, ডিপিএফ আয়োজিত গণশুনানি, সংলাপ ও অন্যান্য চেতনতামূলক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সরকার ও বেসরকারি অংশীদারদের মধ্যে সমন্বয়হীনতার অভাবের বিষয়টি উঠে এসেছে। এসব বৈঠকের মধ্য দিয়েই স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে বিদ্যমান নানারকম সমস্যার কথাও উঠে এসেছে।


বর্ষীয়ান সাংবাদিক ও ডিপিএফ সভাপতি বাবুল সরকার বলেন, “স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদেরকে আরো উৎসাহিত করতে ও সক্রিয় করার লক্ষ্যেই সমাজের সুপরিচিত ও প্রভাবশালী ২০ জন মানুষকে একত্রিত করেছে ডিপিএফ।”


তার মতে, ডিস্ট্রিক্ট পলিসি ফোরামের মূল লক্ষ্য ছিল প্রভাবক ও সহায়ক হিসেবে কাজ করা। তিনি বলেন, সংলাপে অংশগ্রহণকারী জনসাধারণ তাদের সমস্যার কথা তুলে ধরেছে। আর সেসব সমস্যা সমাধানের বিষয়ে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে অন্তত মৌখিক আশ্বাস হলেও নেয়ার ব্যবস্থা করেছে এই ফোরাম। “স্বাস্থ্যকেন্দ্রেপ্রায়ই পানি থাকে না, এমন একটি অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের জেলা কর্মকর্তা তখনই নির্দেশ দিয়েছেন যেন ওই এলাকার পরবর্তী নলকূপটি বসানো হয় এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে,” বলছিলেন বাবুল সরকার।


তিনি আরো জানান, ডিপিএফ আয়োজিত বৈঠকগুলোর ফলে স্থানীয় বাসিন্দারা সামাজিক দায়বদ্ধতার উপকরণগুলো সম্পর্কে সচেতন হয়েছেন। সেই সাথে, সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে নিজেদের অংশীদারিত্বের ক্ষেত্রেও তারা এখন আগের চেয়ে সচেতন।


“মসজিদ-মন্দিরের কাজে মানুষ যেভাবে এগিয়ে আসেন, এখন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের উন্নয়নেও তারা তেমনি এগিয়ে আসেন।”

ডিপিএফ সাধারণ সম্পাদক মো: আব্দুস সালাম শেখ বলেন, “সরকারি কর্মকর্তারা এখন কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শনে আরো তৎপর।ফলে স্বাভাবিকভাবেই ক্লিনিক ব্যবস্থাপনা কমিটিও আগের চেয়ে সক্রিয়।কারণ, তাদেরকে এখন নিয়মিত জবাবদিহিতার মুখোমুখি হতে হয়।


ডিপিএফ সদস্যদের লক্ষ্য ছিল একটি টেকসই সেবাপ্রবাহ তৈরি করা, যেন পিফরডি প্রকল্প শেষ হওয়ার পরও স্থানীয় বাসিন্দারা দীর্ঘমেয়াদী, কার্যকর ও নির্ঝঞ্ঝাটসেবাব্যবস্থার সুফল ভোগ করতে পারেন।ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে রোগীদের জন্য ওষুধের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করার পাশাপাশি তারা এক্সরে ও আল্ট্রাসনোগ্রামমেশিনেরও ব্যবস্থা করতে চান।


সরকারি ও বেসরকারিখাতের অব্যাহত সমন্বয় কীভাবে দ্রুত সুফল বয়ে আনতে পারে, তা দেখিয়েছে বাগেরহাট ডিস্ট্রিক্ট পলিসি ফোরাম। ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওষুধের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ ও মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করার সংকল্প নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চায় এই ফোরাম, যেন কবিতা রানীর মতো প্রান্তিক মানুষেরা রোগে-শোকে তাদের প্রিয় ডাক্তার সাহেবদের ওপর আস্থা অব্যাহত রাখতে পারেন।


এই প্রকাশনাটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের আর্থিক সহায়তায় তৈরি। প্রকাশনার বিষয়বস্তুর দায়িত্ব প্ল্যাটফর্মস ফর ডায়ালগ প্রকল্পের। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতামতকে প্রতিফলিত নাও করতে পারে।

17 views0 comments

Comments


bottom of page