top of page

গণশুনানি থেকে নেয়া হলো পদক্ষেপঃ বাগেরহাটে সরকারি সেবা সহজলভ্য করার উদ্যোগ নিলো কর্মকর্তাগণ



বাগেরহাটের গণশুনানিতে সুশীল সমাজ প্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে উপজেলা ওয়েবসাইট হালনাগাদ করা হলো


সরকারি ওয়েবসাইটগুলোতে নাগরিকদের প্রয়োজনীয় সরকারি সেবা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য দেয়া থাকে। ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনের ব্যবহার যথেষ্ট পরিমাণে বাড়লেও বাগেরহাটের একজন সুশীল সমাজ প্রতিনিধি জনাব শামিম লক্ষ্য করেন উপজেলা ও জেলার সরকারি ওয়েবসাইটগুলো ঠিকঠাক হালনাগাদ করা হচ্ছে না।


সরকারি সেবার মানকে আরও উন্নত করার উদ্দেশ্যে স্থানীয় সরকার ও সুশীল সমাজ প্রতিনিধিদের আয়োজিত এক গণশুনানিতে শামিম তার এই পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেন।

বাগেরহাটের জেলা কমিশনার বিষয়টিকে যথেষ্ট গুরুত্বের সাথে নিয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশনা দেন। একই সাথে তিনি জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সাথে একটি সভা করে তাদের কাছ থেকে এ ব্যাপারে পরামর্শ আহবান করেন।


সভাটিতে বাগেরহাট ডিপিএফের সদস্যগণ সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং তাদের মতামত ব্যক্ত করেন।ডিপিএফের সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং সরকারি কর্মকর্তা ও নাগরিকদের পরামর্শ নিয়ে খুব দ্রুত বিষয়টির সমাধান করা হয়। এ ধরণের গণশুনানিতে জনগণের স্বার্থ রক্ষায় সুশীল সমাজ প্রতিনিধিদের পদক্ষেপ প্রশংসনীয়। সরকারি ওয়েবসাইটগুলোতে সেবা সংক্রান্ত তথ্য হালনাগাদ করায় নাগরিকদের জন্য সরকারি সেবা এখন আরও সহজলভ্য হবে।

বাগেরহাটের স্কুল ম্যানেজমেন্ট কমিটির (এসএমসি) যথাযথ তদারকি নিশ্চিতকরণ


একই শুনানিতে আরেকজন আফরোজা বেগম নামের আরেকজন ডিপিএফ সদস্য দাবি করেন স্কুল ম্যানেজমেন্ট কমিটিগুলো শিক্ষার সঠিক মান নিশ্চিতকরণে দায়িত্বগুলো ঠিকঠাক পালন করছে না। তার উপর স্থানীয় শিক্ষা অফিস এই কমিটিগুলোর কার্যক্রম ঠিকভাবে তদারকি করছে না। এতে তাদের জবাবদিহি ও ব্যবস্থাপনায় ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। ডিপিএফ সদস্যের দাবিটি আমলে নিয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা স্কুল ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাগুলোর যথাযথ তদারকির ব্যবস্থা করেন। জেলা শিক্ষা কার্যালয়ের উপ পরিচালক জবান আবু হানিফ এ উপলক্ষ্যে খাসেরহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একটি সভা পরিদর্শনে যান এবং কমিটির দায় দায়িত্ব সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট সকলকে পুনরায় সচতন করেন। এছাড়াও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ভবিষ্যতে কমিটিগুলোর কার্যক্রম যথাযথ ভাবে তদারকি করার আশ্বাস ব্যক্ত করেন।

গত কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়ন হয়েছে। এ ব্যাপারে সমাজের বিভিন্ন অংশীজন অগ্রগামী ভূমিকা রেখে চলেছে। নিঃসন্দেহে স্কুল ম্যানেজমেন্ট কমিটিগুলো মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। কিন্তু যথাযথ তদারকি না হলে স্কুলের কার্যক্রম চালানোয় তাদের দক্ষতায় ঘাটতি পরতে পারে। বাগেরহাট ডিপিএফের সদস্যগণ স্থানীয় সরকারি অফিসগুলোর সাথে শিক্ষার মানোন্নয়নে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। এতে এলাকার তরুণ সম্প্রদায় তাদের জ্ঞান ও দক্ষতার সমন্বয়ে জেলাকে আরও উন্নত করায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে।

 

মোটকথা বাগেরহাটের জনগণ এখন স্থানীয় সরকারি অফিসগুলো থেকে আরও অগ্রগামী এবং সক্রিয় পদক্ষেপ দেখতে পাচ্ছে। সম্প্রতি আমাদের করা একটি জরিপে দেখা গেছে শতকরা ৬২ জন মানুষই ভাবছে সরকারি কর্মকর্তাগণ আগের চেয়ে বেশি জবাবদিহিমূলক হয়েছেন। এর অর্থ পিফরডি প্রকল্পের কার্যক্রম, সুশীল সমাজের নেতৃত্বে প্রচারণা কার্যক্রম এবং সরকারের চেষ্টায় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন ঘটছে। এ ধরণের উন্নয়ন বজায় রাখতে জনগণের ক্রমাগত অংশগ্রহণ জরুরি। আমরা আশা করি মাঠ পর্যায়ে আমাদের অংশীদারগণ তাদের এই কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। এতে সরকারি কর্মকর্তাদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি স্থানীয় গণতন্ত্রে জনগণের অংশগ্রহণও বজায় থাকবে।

 

This publication was produced with the financial support of the European Union. Its contents are the sole responsibility of Platforms for Dialogue and do not necessarily reflect the views of the European Union.

4 views0 comments

Comments


bottom of page