• Platforms for Dialogue

সাম্প্রতিক খবর | সোমবার | ১৫ মার্চ ২০২১



নীতিনির্ধারণে নাগরিক সম্পৃক্ততা

জেলা পলিসি ফোরাম গঠন করছে প্ল্যাটফর্মস ফর ডায়ালগ


স্থানীয় পর্যায়ে ২১ টি জেলায় সাফল্যের সাথে কার্যক্রম পরিচালনার পর প্ল্যাটফর্মস ফর ডায়ালগ (পিফরডি) জেলা পলিসি ফোরাম (ডিপিএফ) গঠনের মাধ্যমে আঞ্চলিক ও জাতীয় পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। ডিপিএফ গুলোতে অন্তর্ভুক্ত হবে জেলাভিত্তিক এনজিও, সুশীল সমাজ সংগঠন, রাজনৈতিক ভাবে সক্রিয় নন এমন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিত্ব (স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিবর্গ এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম) এবং বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ ও ফোরামের কার্যক্রমে অংশগ্রহণে ইচ্ছুক শিক্ষিত প্রযুক্তি জ্ঞান সম্পন্ন প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিক। এছাড়াও আগ্রহী জেলা পর্যায়ের এনজিও, সুশীল সমাজের বিশিষ্ট প্রতিনিধি এবং স্থানীয় সরকারের প্রনিনিধিরা চাইলে ফোরামে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। সমাজের বিভিন্ন অংশের প্রতিনিধিত্বকারী নাগরিক গোষ্ঠী জেলা পিলিসি ফোরামে বৈচিত্র্য এবং সামাজিক অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করবে।


জেলা পর্যায়ে সামাজিক জবাবদিহি নীতিমালার প্রচার, নীতিনির্ধারণ ও বাস্তবায়নে সুশীল সমাজ সংগঠনের অংশগ্রহণ এবং নাগরিক স্বার্থ যথাযথভাবে তুলে ধরার সক্ষমতা নিয়ে ডিপিএফ গুলো কাজ করবে। ডিপিএফ গঠনে পিফরডি সক্ষমতা বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ সহ পলিসি সংলাপ, প্রচারণা এবং অ্যাডভোকেসি কর্মসূচী আয়োজনে কারিগরি ও প্রক্রিয়াগত সহযোগিতা করবে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন জাতীয় নেটওয়ার্ক, ফোরাম, প্ল্যাটফর্ম এবং সংগঠনের সাথে ডিপিএফ গুলোর সংযোগ স্থাপন করে দেয়া হবে একটি প্রধান কাজ।


বাগেরহাট, বান্দরবান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, জামাল্পুর, কিশোরগঞ্জ, কুষ্টিয়া, নীলফামারী, নাটোর, পঞ্চগড়, পটুয়াখালী, মুনশিগঞ্জ এবং মৌলভীবাজার জেলায় ডিপিএফ গঠন করা হচ্ছে। প্রাথমিক পরিকল্পনায় ৮ টি জেলায় কাজ করার কথা থাকলেও কোভিড-১৯ অতিমারির কারণে বিরাজমান অবস্থা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং বড় আকারের জনসমাগমে সীমাবদ্ধতা থাকায় পিফরডি ১২ টি জেলায় ফোরাম প্রতি গড়ে ২০ জনের মতো প্রতিনিধি নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই ১২ টি জেলা বাছাই করা হয়েছে পিফরডি কার্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত ২১ টি জেলা থেকে যেখানে অংশীদারি সুশীল সমাজ সংগঠন গুলো সাফল্যের সাথে বাল্য বিবাহ, কমিউনিটি সেবা, স্বাস্থ্য ক্লিনিক, মানসম্পন্ন শিক্ষা এবং ইউনিয়ন পরিষদ পরিকল্পনা প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে সামাজিক অ্যাকশন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। আশা করা যায় যে ডিপিএফ এর কার্যক্রম জাতীয় পর্যায়ে নীতিনির্ধারণে ভুমিকা রাখবে।


মাসের মাঝামাঝি শুরু হয়ে ওরিয়েন্টেশন কর্মশালাগুলো মার্চ মাস জুড়ে চলবে। এরপর এপ্রিল ও মে মাসে সপ্তাহব্যাপী বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ সহ ফোরামের অ্যাকশন প্ল্যান তৈরির কাজ চলবে। এ বছরের জুন থেকে পিফরডি’র সহায়তায় ডিপিএফ গুলো অ্যাকশন প্ল্যান বাস্তবায়নের কাজ শুরু করবে যা ডিসেম্বরে গিয়ে শেষ হবে। ডিপিএফ এর কার্যক্রম থেকে অর্জিত জ্ঞান জাতীয় পর্যায়ে বিষয়ভিত্তিক নীতিনির্ধারণী ফোরাম গুলোতে ভুমিকা রাখবে।


পিফরডি এমন একটি সহায়ক পরিবেশ তৈরির জন্য কাজ করছে যেখানে নাগরিক ও সুশীল সমাজ সকল ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত হতে এবং কার্যকরভাবে অংশ নিতে পারে। এজন্য সুশীল সমাজের আগ্রহী ব্যক্তিবর্গকে একত্রিত করে পিফরডি সক্ষমতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছে যাতে তারা নাগরিকদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়াবলি সঠিকভাবে তুলে ধরতে পারেন এবং প্রভাবক হিসেবে কাজ করতে পারেন। একইসঙ্গে সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি, তথ্য অধিকার আইন, অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থা ও জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশলের মতো সামাজিক জবাবদিহি নীতিমালাগুলোর কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করতে পিফরডি অংশীদারিদের সক্ষমতা বৃদ্ধির কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

137 views0 comments